বিজয়ের কাছাকাছি এসেও শেষ বলে হেরে গেলো বাংলাদেশ

Dinesh Karthik scored a six off the last ball to win
কাঠমন্ডু: অবশেষে নানা জল্পনা কল্পনার আর নাটকীয়তার পর বিজয়ী হলো ভারত।

রোহিত শর্মার একটি বিধ্বংসী ইনিংস সব উলট পালট করে দিতে চেয়েছিল। সেই রোহিত শর্মাকে আউট করে বাংলাদেশকে খেলায় ফেরান নাজমুল ইসলাম অপু। ইনিংসের শুরু থেকে অসাধারণ খেলে যাওয়া ভারতীয় অধিনায়ককে ফেরান অপু। ৫৬ রান করে ফিরেছেন ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত। তার তাতেই খেলার মোর ঘুরে গিয়েছিল।

৩২ রানে দুই উইকেট তুলে নিয়ে ভারতকে বেকায়দায় ফেলে দেন সাকিব-রুবেলরা। কিন্তু উইকেট তুলে নেয়ার এই ধারাবাহিকতা আর ধরে রাখতে পারেননি তারা। তৃতীয় উইকেটে লোকেশ রাহুলকে সঙ্গে নিয়ে প্রাথমিক ধকল সামলিয়ে দলকে খেলায় ফেরান ওপেনার রোহিত শর্মা। এই জুটির বিচ্ছেদ ঘটান রুবেল হোসেন। তার বলে বাউন্ডারিতে ক্যাচ তুলে দিয়ে বিদায় নেন ২৪ রান করা লোকেশ রাহুল। তার আগে ৫১ রানের জুটি গড়েন তিনি।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ভারতের সংগ্রহ ১৪.৪ ওভারের খেলা শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে ১১৪ রান।

বাংলাদেশর করা ১৬৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরু থেকেই আক্রমণাত্মক ব্যাটিং করে ভারত। শুরু থেকে একের পর এক বাউন্ডারি হাঁকাতে থাকা ভারতীয় ক্রিকেট দলের লাগাম টেনে ধরেন সাকিব। রোহিত শর্মা এবং শেখর ধাওয়ানের ২.৪ ওভারের ৩২ রানের জুটি ভাঙেন সাকিব।

ভারতীয় শিবিরে দ্বিতীয় আঘাত হানেন রুবেল হোসেন। বাংলাদেশি এই পেস বোলাররের বলে উইকেটের পেছনে ক্যাচ তুলে দেন সুরেশ রায়না। এর আগে সাকিব আল হাসানের বলে রুবেল হোসেনের হাতে ক্যাচ তুলে দিয়ে বিদায় নেয়ার আগে ১০ রান করেন ধাওয়ান।

এর আগে সাব্বির রহমান রুম্মনের লড়াকু ব্যাটিংয়ে ভর করে ভারতের বিরুদ্ধে চ্যালেঞ্জিং স্কোর গড়েছে বাংলাদেশ। শ্রীলংকার কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৮ উইকেটে ১৬৬ রান সংগ্রহ করেছে টাইগাররা।

টি-টোয়েন্টিতে ২১ ম্যাচ পর ফিফটির দেখা পেলেন সাব্বির রহমান। তার ব্যাটে ভর করে ভারতের বিপক্ষে লড়াই করছে বাংলাদেশ দল। ৭৭ রান করে সাজঘরে ফেরেন সাব্বির।

২০১৬ সালের ফেব্রুয়ারিতে এশিয়া কাপে শ্রীলংকার বিপক্ষে ঢাকার মিরপুর শেরেবাংলায় ৮০ রানের ইনিংস খেলেছিলেন সাব্বির। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে এটাই তার সর্বোচ্চ রানের স্কোর।

রোববার ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে ৫০ বল মোকাবেলা করে ৭ চার ও ৪ ছক্কায় ৭৭ রান করে আউট হন রুম্মন।

৬৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়া দলকে পথ দেখান সাব্বির। প্রথম সারির ৪ ব্যাটসম্যানের উইকেট হারিয়ে ত্রিদেশীয় সিরিজের ফাইনালে ভারতের বিপক্ষে গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে শুরুতেই চাপে পড়ে যায় টাইগাররা। দলের এমন কঠিন বিপদের দিনে বাড়তি দায়িত্বশীলতার পরিচয় দেন সাব্বির। টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে নিজের ক্যারিয়ারের চতুর্থ ফিফটি তুলে নেন তারকা এ ব্যাটসম্যান।

টসে জিতে বাংলাদেশকে আগে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রণ জানায় ভারতীয় অধিনায়ক রোহিত শর্মা। রোববার সন্ধ্যায় কলম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামে ত্রিদেশীয় সিরিজের খেলায় আগে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে যায় বাংলাদেশ।

উদ্বোধনীতে ২৭ রান করেন তামিম ইকবাল ও লিটন কুমার। এরপর ৬ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে কোণঠাসা হয়ে পড়ে বাংলাদেশ দল। ওয়াশিংটন সুন্দরকে বাউন্ডারি হাঁকাতে গিয়ে বল শূন্যে তুলে দেন লিটন। ৯ বলে ১১ রান করে ফেরেন এই ওপেনার। কোনো রান যোগ করার আগেই ফেরেন তামিম ইকবাল। উনাদখতকে ছক্কা মারতে গিয়ে বাউন্ডারি রোতে শারদুল ঠাকুরের দুর্দান্ত ক্যাচে পরিণত হন তামিম। সাজঘরে ফেরার আগে ১৩ বলে ১ চারের মারে ১৫ রান করেন বাংলাদেশ সেরা এই ওপেনার।

এরপর মাত্র ৬ রানের ব্যবধানে শেখর ধাওয়ানের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন সৌম্য সরকার। চতুর্থ উইকেটে সাব্বিরের সঙ্গে ৩৫ রানের জুটি গড়তেই বিপদে পড়ে যান মুশফিকুর রহিম। ১২ বলে ৯ রান করে ফেরেন এই উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান। পঞ্চম উইকেটে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে নিয়ে ফের ৩৬ রানের জুটি গড়তেই ভুল বোঝাবুঝিতে রান আউটের ফাঁদে পড়েন রিয়াদ। তার আগে ১৬ বলে ২১ রান করে যান মাহমুদউল্লাহ।

রিয়াদের বিদায়ের পর সাকিব আল হাসানের সঙ্গে ফের জুটি বাঁধেন সাব্বির। এই জুটি ২৯ রান তুলতেই বিপদে পড়ে যায়।৭ বলে ৭ রান করে ফেরেন সাকিব। এরপর দ্রুত বিদায় নেন সাব্বির নিজেও। ইনিংসের শুরুর দিকে ব্যাটিংয়ে নামা সাব্বির খেলে যান ১৮.২ ওভার পর্যন্ত। শেষ দিকে মেহেদী হাসান মিরাজের ৭ বলের অপরাজিত ১৯ রানের সুবাদে ১৬৬ রান তুলতে সক্ষম হয় বাংলাদেশ।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ ২০ ওভারে ১৬৬/৮ রান (সাব্বির ৭৭, মাহমুদউল্লাহ ২১, মিরাজ ১৯; চাহাল ৩/১৮, উনাদখত ২/৩৩)।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here