চুলের যত্নে ৮টি কার্যকর হেয়ার মাস্ক

effective hair mask
বিভিন্ন ধরনের চুলের যত্নে হেয়ার মাস্ক

সারা বিশ্ব জুড়ে বেশিরভাগ নারীদের জন্য চুল পরা একটি বিশাল সমস্যা এবং আপনি যদি তাদের মধ্যে একজন হন তাহলে আপনার জেনে রাখা ভাল  এই সমস্যা সমাধানের অনেকগুলো উপায় রয়েছে। কিন্তু একটা মাত্র সমস্যা হল পার্লারে গিয়ে এই সব ট্রিটমেন্ট নেওয়ার মত যথেষ্ট সময় সবার থাকে না। আপনার ব্যস্ত সময়ের কারণে আপনার চুলের ট্রিটমেন্টের জন্য সময় বের করা খুব কষ্টকর হয়ে যেতে পারে। যাইহোক, এখানে আরো অনেক উপায় রয়েছে চুল পরা স্থায়ীভাবে বন্ধ ও প্রতিরোধ করার একটি ফলপ্রসূ এবং স্মার্ট পথ হলো ঘরে তৈরি কিছু মাস্ক ব্যবহার করা।

চুল পরা প্রতিরোধে হেয়ার মাস্ক

১. ডিমের চুলের মাস্ক
২. গ্রিন টি মাস্ক
৩. ভিটামিন ই ক্যাপসুল মাস্ক
৪. লেবু, ক্রিম এবং গম বীজের তেলের মাস্ক
৫. শুষ্ক চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক
৬. স্বাভাবিক চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক
৭. তৈলাক্ত চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক

১. চুলের জন্য ডিমের মাস্ক

ডিমে প্রচুর পুষ্টি এবং প্রোটিন রয়েছে যা আপনার চুলের স্বাস্থ্য রক্ষা করার জন্য খুবই উপকারী। ডিম সকল ধরণের চুলে খুব ভালো কাজ করে এবং আপনার চুলে খুব ভালো পুষ্টি প্রদান করে। যার ফলে চুল পরা কমে। এছাড়াও এতে প্রচুর ভিটামিন বি আছে যা চুলের বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয়। চুলের বৃদ্ধির জন্য ঘরে তৈরি কার্যকর হেয়ার মাস্কগুলোর মধ্যে এটি একটি।

কিভাবে ডিমের মাস্ক তৈরি করবেন?

উপকরণ

  • ১ টি ডিম
  • ১ কাপ দুধ
  • ২ টেবিল চামচ লেবুর রস
  • ২ টেবিল চামচ অলিভ অয়েল

প্রক্রিয়া

  • ডিম ফাটিয়ে নিন এবং অন্যান্য উপকরণের সাথে মিশিয়ে নিন।
  • মিশ্রণটি আপনার চুল এবং স্ক্যাল্পে আলতো করে লাগান।
  • একটি শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে চুল ঢেকে দিন এবং আপনার চুলে মিশ্রণটি ২০ মিনিট রাখুন।
  • ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

বিকল্পভাবে, আপনি শুধুমাত্র ডিম চুলে ব্যবহার করতে পারেন নিচের কয়েকটি ধাপের মাধ্যমেঃ

  • কয়েকটি ডিম একসাথে ফাটিয়ে নিন। কুসুম এবং সাদা অংশ ভালোভাবে মিশে না যাওয়া পর্যন্ত ব্লেন্ড করুন।
  • আপনার চুল এবং স্ক্যাল্পে ম্যাসাজ করুন।
  • ১৫-২০ মিনিটের জন্য রেখে দিন।
  • ঠান্ডা পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন।

ডিমের মাস্কের উপকারিতা

  • প্রোটিন এবং অ্যামিনো সমৃদ্ধ, যা চুলে পুষ্টি জোগায়
  • উজ্জ্বলতা প্রদান করে
  • চুল পরা কমায়।
  • চুল বৃদ্ধিতে সহায়তা করে।

. গ্রিন টি হেয়ার মাস্ক

গ্রিন টি এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ এবং র‍্যাডিকেলের কারণে চুল ঝরা প্রতিরোধের সহজ সমাধান।

কিভাবে  গ্রিন টি হেয়ার মাস্ক বানাবেন?

উপকরণ

  • ১ টি ডিমের কুসুম
  • ২ টেবিল চামচ গ্রিন টি

প্রক্রিয়া

  • উপকরণগুলো একসাথে নিয়ে একটি ক্রিমি গঠন না হওয়া পর্যন্ত মিশান।
  • একটি ব্রাশ দিয়ে মিশ্রণটি আপনার চুলে এবং স্ক্যাল্পে লাগান।
  • ১৫-২০ মিনিট অপেক্ষা করুন।
  • শ্যাম্পু করার আগে ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

গ্রিন টি হেয়ার মাস্কের উপকারিতা

  • প্রোটিন চুল এবং স্ক্যাল্পে পুষ্টি জোগায়।
  • চুল ঝরা কমায়।
  • এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট র‍্যাডিকেলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।

. ভিটামিন ক্যাপসুল হেয়ার মাস্ক

ভিটামিন ই তেল এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট সমৃদ্ধ। এটি এ্যান্টি-ফাংগাল এবং এ্যান্টি-ইনফ্লেমেটোরি বৈশিষ্ট্য সমৃদ্ধ যা স্ক্যাল্পকে সুস্থ রাখে এবং চুল ঝরা কমায়। এই মাস্কটি সপ্তাহে তিনবার ব্যবহার করা যেতে পারে।

কিভাবে ভিটামিন ক্যাপসুল হেয়ার মাস্ক বানাবেন?

উপকরণ

  • ২ ভিটামিন ই ক্যাপসুল
  • ১ টেবিল চামচ বাদাম তেল
  • ১ টেবিল চামচ নারিকেল তেল
  • ১ চা চামচ ক্যাস্টর অয়েল
  • কয়েক ফোঁটা ল্যাভেন্ডার এ্যাসেন্সিয়াল তেল

প্রক্রিয়া

  • সব উপকরণ একসাথে মিশান। আপনি চাইলে বেশি পরিমাণে বানিয়ে সংরক্ষণ করতে পারেন।
  • আপনার সম্পূর্ণ চুলে তেলটি লাগান।
  • তেলটি সারারাত চুলে রাখুন এবং পরের দিন সকালে শ্যাম্পু ও ঠান্ডা পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

ভিটামিন হেয়ার প্যাকের উপকারিতা

  • এ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল এবং এ্যান্টি-ইনফ্লেমেটোরি বৈশিষ্ট্যে স্ক্যাল্প সুস্থ রাখে।
  • এ্যান্টি-অক্সিডেন্ট র‍্যাডিকেলের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।
  • গোড়া মজবুত করে।
  • চুল পরা কমায়।

. লেবু, ক্রিম এবং গম বীজের তেল

লেবু আপনার কোষ এবং চুল পরিষ্কার করার জন্য উপযুক্ত এবং ধুলাবালি থেকে মুক্তি পাওয়ার একটি ভালো উপায়।

কিভাবে ঘরে লেবুর হেয়ার মাস্ক তৈরি করবেন?

উপকরণ

  • ২ টি লেবু
  • ১/৪ কাপ টক ক্রিম
  • ১/৪ কাপ গম বীজের তেল

প্রক্রিয়া

  • লেবুর রসগুলো বের করে নিন এবং সব উপকরণগুলো একসাথে মিশান।
  • মিশ্রণটি আপনার চুলের আগা থেকে গোড়া পর্যন্ত লাগান এবং এক ঘন্টা রেখে দিন।
  • কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন।
  • কসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন এবং এরপর শ্যাম্পু এবং কন্ডিশনার লাগান।

লেবু, ক্রিম এবং গম বীজের তেলের মাস্কের উপকারিতা

  • গ্রন্থিগুলো দূষনমুক্ত করে
  • জমে থাকা ধুলাবালি দূর করে
  • গোড়া মজবুত করে
  • বিভিন্ন রকম চুলের জন্য এটি আদর্শ হেয়ার মাস্ক

. শুষ্ক চুলের জন্য মধুর হেয়ার মাস্ক

এই হেয়ার মাস্কটি আপনার চুলকে খুবই ভালোভাবে নিয়ন্ত্রণযোগ্য করে, নরম করে এবং কোঁকড়াভাব কমায়। এটি একটি উপযুক্ত কন্ডিশনিং মাস্ক।

শুষ্ক চুলের জন্য কিভাবে ঘরেই হেয়ার মাস্ক বানাবেন?

উপকরণ

  • ৪ টেবিল চামচ মধু
  • ১ চা চামচ বাদামের পেস্ট (৪ টি বাদাম ১/২ টেবিল চামচ গোলাপজল দিয়ে ব্লেন্দ করে নিন)
  • ২ টেবিল চামচ ক্রিম

প্রক্রিয়া

  • মধু এবং বাদামের পেস্ট একটি পাত্রে একসাথে মিশান।
  • ক্রিম সামান্য ফুলে না যাওয়া পর্যন্ত ফাটিয়ে নিন এবং মধু-বাদামের মিশ্রণে মিশিয়ে নিন।
  • আপনার চুলে গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত মাস্কটি লাগান। ৩০ মিনিট পর্যন্ত মাথায় রাখুন।
  • ঠান্ডা পানি দিয়ে আপনার চুল ধুয়ে নিন। একটি হালকা শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং আপনার চুলকে স্বাভাবিকভাবে শুকাতে দিন।

নোটঃ আপনি ক্রিমের পরিবর্তে দই ব্যবহার করতে পারেন, ফলাফল সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।

শুষ্ক চুলের জন্য ঘরে তৈরি হেয়ার মাস্কের উপকারিতা

  • চুলকে ময়েশ্চারাইজড করে
  • স্ক্যাল্পকে শীতল করে
  • স্বাস্থ্যকর চুলের বৃদ্ধিতে উৎসাহ প্রদান করে

. স্বাভাবিক চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক

এখন আমি যে হেয়ার মাস্ক এর কথা বলবো সেই মাস্কটি বানাতে আপনার কাছে একদম সহজ হবে। এটি আপনি এক সপ্তাহ ধরে রেখে দিতে পারবেন। তবে অবশ্যই ফ্রিজে রাখতে হবে। এই মাস্ক চুল থেকে হারিয়ে যাওয়া পুষ্টি ফিরিয়ে দেয়। এছাড়াও এই মাস্ক চুলের কোমলতা পুনরুদ্ধার করে।

উপকরণ

  • ১ টি ডিম
  • ১ চা চামচ লেবুর রস
  • ১ চা চামচ বাদাম তেল
  • ১ চা চামচ মধু
  • ৪ টেবিল চামচ ফ্ল্যাট বিয়ার

প্রক্রিয়া

  • ডিম এর কুসুমটি সাদা অংশ থেকে আলাদা করে নিন এবং বাকি উপকরণগুলোর সাথে মিশান।
  • মিশ্রণটি আপনার স্ক্যাল্পে লাগান।
  • এখন ডিমের সাদা অংশটির সাথে ৪ টেবিল চামচ ফ্ল্যাট বিয়ার মিশান। ফুলে না উঠা পর্যন্ত ফ্যাটাতে থাকুন।
  • এই মিশ্রণটি চুলের গোড়া থেকে আগা পর্যন্ত লাগান।
  • একটি শাওয়ার ক্যাপ দিয়ে আপনার চুল ঢেকে দিন এবং ৩০-৪০ মিনিট আপনার চুলে মিশ্রণটি রাখুন।
  • একটি ভালো শ্যাম্পু দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন এবং চুল স্বাভাবিকভাবে শুকাতে দিন।

স্বাভাবিক চুলের হেয়ার মাস্কের উপকারিতা

  • চুলকে রেশমি এবং ঘন করে
  • চুলে উজ্জ্বলতা প্রদান করে
  • চুলে পুষ্টি জোগায়
  • স্ক্যাল্পের স্বাস্থ্য উন্নতি করে

. তৈলাক্ত চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক

অনেক মানুষ তৈলাক্ত চুলে হেয়ার মাস্ক ব্যবহার করতে ভয় পায় কারণ তখন হয়ত চুল আরো তৈলাক্ত হয়ে যাবে। তৈলাক্ত চুলের মাস্কের জন্য এমন উপকরণ খুঁজতে হবে যা তেলের নিঃসরণ কমায়, এবং আপনার চুলের পুষ্টিগুণ দূর করে দেয় না। এই হেয়ার মাস্কটি তৈলাক্ত চুলের জন্য বিশেষভাবে তৈরি এবং নিখুঁতভাবে কাজ করে।

কিভাবে ঘরে তৈলাক্ত চুলের জন্য হেয়ার মাস্ক বানাবেন?

উপকরণ

  • ১ টেবিল চামচ পানি
  • ১ চিমটি ফ্রুট সল্ট
  • ২ টি আমলকির পেস্ট
  • ১ টি ডিমের সাদা অংশ

প্রক্রিয়া

  • ডিমের সাদা অংশ ফ্যাটিয়ে নিন যতক্ষণ পর্যন্ত না সাদা অংশ ফুলে উঠে এবং অন্যান্য উপকরণগুলো মিশান।
  • চুলে মিশ্রণটি লাগান।
  • ২০-৩০ মিনিট চুলে রাখুন এবং ভালোভাবে ধুয়ে ফেলুন।
  • একটি ভালো শ্যাম্পু ব্যবহার করে চুল ধুয়ে নিন এবং বাতাসে শুকিয়ে নিন।

তৈলাক্ত চুলের হেয়ার মাস্কের উপকারিতা

  • চিটচিটে ভাব দূর করে
  • চুলকে ঘন করে।
  • লোমকূপ ধুলাবালি মুক্ত করে এবং চুল পরা কমায়

আশা করি উপরের হেয়ার মাস্কগুলো ব্যবহার করে আপনার চুলের সমস্যা সমাধান করতে পারবেন। সকলের সুস্থ্যতা কামনা করছি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here